কার্টুন চাচা চৌধুরীর জনক প্রাণ এর জীবনী (Chacha Chauwdhary lekhok Pran)

কার্টুন_চাচা_চৌধুরীর_জনক_প্রাণ_এর_জীবনী
Picture source: toonsmag.com


কার্টুন চাচা চৌধুরীর জনক প্রাণ


মাত্র নয় বছর বয়সে তিনি দেশবিভাগের রক্তাক্ত ইতিহাসের সাক্ষী থেকেছেন। সে সময় তিনি মনে মনে ঠিক করে নিয়েছিলেন এমন একটি প্রফেশন তিনি গ্রহণ করবেন যা মানুষকে হাসির যোগান দেবে। তারপর কিভাবে তিনি চাচা চৌধুরী (Chacha Chauwdhary) সহ আরো অন্যান্য জনপ্রিয় কার্টুন চরিত্র গুলো কে সৃষ্টি করলেন, চলুন জেনে আসি।



প্রাণ কুমার শর্মার জন্ম


কার্টুন চাচা চৌধুরীর আবিষ্কর্তা প্রাণ অর্থাৎ প্রাণ কুমার শর্মার জন্ম 1938 সালে পাকিস্তানের লাহোরের নিকটবর্তী কসুর নামক একটি জায়গায়। দেশ বিভাজনের পর তারা প্রথমে গোয়ালিয়র এবং পরে দিল্লিতে চলে আসেন। মাত্র 6 মাস বয়সে তিনি তার বাবাকে হারান। তারা সাত ভাই বোন ছিলেন। বাবা মারা যাওয়ার পর চরম আর্থিক সংকটের মধ্যে দিয়ে তাদের সংসার চলতো। বড় দাদা সাইনবোর্ড, ব্যানার, পোস্টার ইত্যাদি লিখতে পারতেন। কিন্তু তা দিয়ে সংসার চালানো খুবই কষ্টের ছিল।



পড়াশোনা


প্রাণ সকল ভাইবোনের মধ্যে ছোট ছিলেন। অন্যান্যদের পড়াশোনার প্রতি তেমন আগ্রহ ছিল না। কিন্তু তার আগ্রহ চোখে পড়ার মতো ছিল। চরম আর্থিক সংকটের কারণে বই কেনার ক্ষমতা ছিল না। তাই তিনি লাইব্রেরীতে গিয়ে বই পড়তেন এবং যখনই সুযোগ পেতেন নিউজ পেপার পড়া শুরু করতেন।



কার্টুন বানাতেন


গোয়ালিয়রে থাকাকালীন তিনি বিএ পাস করেন। এরপর তিনি দিল্লী চলে আসেন। এখানে এসে তিনি কার্টুন কে প্রফেশন করে নেন। দিনে তিনি কার্টুন (Cartoon) বানাতেন, কমিকস চরিত্র তৈরি করতেন। আর সন্ধ্যায় তিনি ক্যাম্প কলেজে পড়তে যেতেন। এখান থেকে তিনি এমএ কমপ্লিট করেন। সাথে সাথে তিনি একজন ভালো মাপের কার্টুনিস্ট হয়ে ওঠেন। তার তৈরি কার্টুন বিক্রি হওয়া শুরু হয় এখান থেকেই।



আরো কিছু কথা


বেনারসি শাড়ির ইতিহাস ও বর্তমান


পান্নালাল ভট্টাচার্য্য র অকাল মৃত্যু ও অজানা তথ্য


গ্রামোফোন রেকর্ডে কুকুরের ছবির ইতিহাস


হেলেন মানেই অসাধারণ নাচ


রেলের টাইম কিপার থেকে সুপারস্টার কে এল সায়গল


পথের পাঁচালীর ইন্দির ঠাকুরণ সম্পর্কে অজানা তথ্য



সামান্য উপার্জন হতো


প্রথম দিকে বিভিন্ন ম্যাগাজিন, পেপার ইত্যাদিতে ছোট ছোট কমিক্সের গল্প তিনি পাবলিশ করতেন। 1960 সাল থেকে তাঁর প্রথম ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশিত হওয়া শুরু হয়। সেখান থেকে খুব সামান্য উপার্জন হতো। এভাবেই চলতে থাকে। তার সৃষ্ট বিখ্যাত চরিত্র চাচা চৌধুরীর কাজ শুরু করেছিলেন 1969 সালে। আর চাচা চৌধুরী কে প্রথম প্রকাশিত করেছিলেন লটপট নামক একটি সাময়িকীতে।



চাচা চৌধুরী


তারপর হঠাৎ করেই একদিন বড় মাপের সুযোগ আসে তার কাছে। 1981সালে ডায়মন্ড ম্যাগাজিন প্রাইভেট লিমিটেড এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর তার সাথে যোগাযোগ করেন এবং প্রাণের তৈরি চরিত্র চাচা চৌধুরী কে তারা বইয়ের আকারে ছাপানোর প্রস্তাব দেন।



ডায়মন্ড কমিক্স


প্রাণ সেই প্রস্তাবে রাজি হন। সেই প্রথম ভারতের ইতিহাসে কার্টুন চরিত্র বইয়ের আকারে প্রকাশ পেল। আর অবিশ্বাস্যভাবে ছাপানোর মাত্র কয়েকদিনের মধ্যেই রেকর্ড বিক্রি শুরু হল চাচা চৌধুরীর। ডায়মন্ডের ডাইরেক্টর ছুটে আসলেন প্রাণের কাছে। তার আরো, আরো চাচা চৌধুরীর গল্প চাই। সেই সময়ে ডায়মন্ড কমিক্স প্রাণ কে 15000 টাকা অগ্রিম দিলেন চাচা চৌধুরীর জন্য। এর আগে পর্যন্ত প্রাণ কখনো এত বড় অংকের অর্থ পাননি তার কমিকসের জন্য। তখন কমিকস বিক্রি করে দু-তিন মাস অপেক্ষা করতে হতো। আর অর্থ পেতেন খুবই সামান্য পরিমাণ।



আত্মবিশ্বাস ছিল


তবে তার এই সফলতা রাতারাতি আসেনি। অনেক কষ্টের পর সাফল্য পেয়েছেন। প্রথম অবস্থায় ম্যাগাজিন বা খবরের কাগজের দপ্তরে দপ্তরে ঘুরে বেরিয়েছেন। সেখান থেকে অনেকবার তাকে রিজেকশন করা হয়েছে। কিন্তু তবুও তার মনের মধ্যে একটা যেদ ছিল এবং নিজের কাজের প্রতি আত্মবিশ্বাস ছিল যে তিনি নিশ্চয়ই পারবেন। তার চাচা চৌধুরী জনপ্রিয় হওয়ার পর তিনি শ্রীমতি তৈরি করেন এবং তারপর তৈরি করেন পিংকি। এভাবেই তিনি একের পর এক কার্টুন চরিত্রদের জীবন দিয়েছেন।



বিদেশী ভাষা


তার ইনস্পিরেশন ছিল বিদেশি কমিকস এবং কার্টুন নির্মাতারা। তিনি সেই সব কমিকস পড়ে উদ্বুদ্ধ হয়েছেন এবং ভেবেছিলেন স্থানীয় মানুষ এই সমস্ত বিদেশী ভাষা বুঝতে পারেন না। কিন্তু তারা কমিক্স ছবিগুলো বেশ উপভোগ করেন। তাই তিনি চেষ্টা করলেন দেশীয় চরিত্র কে কাজে লাগিয়ে আর দেশের ভাষার মাধ্যমে এমন একটি কিছু করতে যা সর্বজন গ্রাহ্য হবে। এভাবেই তিনি এগিয়ে যান তার কাজে।



পেন্সিল হাতে কমিকস


জীবনের শুরুর দিকে অনেক চড়াই-উতরাই, আর্থিক অসচ্ছলতা এবং কষ্ট সয়েছেন। তাই সারাজীবন চেষ্টা করেছেন মানুষকে খুশিতে রাখতে এবং হাসির যোগান দিতে। বন্ধুদের সাথে যখন মিশতেন, তখন জোক বলতেন এবং তাদের হাসাতেন। এটা ছিল তার ঈশ্বরপ্রদত্ত প্রতিভা। তাই তো তিনি এত মহান সৃষ্টি করে গেছেন। তিনি বলতেন তার শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত তিনি পেন্সিল হাতে কমিকস তৈরি করতে থাকবেন এটাই তার ইচ্ছা।



জনপ্রিয়তম ব্যঙ্গচিত্র শিল্পী


জীবনে বিভিন্ন দেশ থেকে প্রচুর ইনভাইটেশন পেয়েছেন তার কর্মকাণ্ডের জন্য। বিভিন্ন পুরস্কার পেয়েছেন সারা জীবন ধরে। 1995 সালে জনপ্রিয়তম ব্যঙ্গচিত্র শিল্পী হিসেবে তিনি লিমকা বুক অব রেকর্ডস এ স্থান অধিকার করেন। ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ কার্টুনিস্টের তরফ থেকে 2001 সাল থেকে লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট পুরস্কার দেওয়া হয়। প্রাণকে ভারতের ওয়ার্ল্ড ডিজনি বলা হয়ে থাকে।



বিখ্যাত কার্টুনিস্ট এর জীবনাবসান


ভারতের বিখ্যাত কার্টুনিস্ট প্রাণ কুমার শর্মা (Pran Kumar Sharma) দীর্ঘ আট মাস যাবৎ ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে 2014 সালের 6 আগস্ট গুরগাও এর একটি হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল 75 বছর। এভাবেই চলে গেলেন চাচা চৌধুরী, বিল্লু, সাবু বা পিংকির স্রষ্টা। তিনি আমাদের ছেড়ে গেলেও আজও তার তৈরি চরিত্র গুলি স্বমহিমায় বিরাজ করছে পাঠকদের মনে।


আজকের লেখাটি (কার্টুন চাচা চৌধুরীর জনক প্রাণ এর জীবনী) ভাল লাগলে কমেন্টে জানাতে পারেন। আমাদের মন জংশন ইউটিউব চ্যানেলে ঘুরে আসতে পারেন আরো পুরাতনী তথ্য জানার জন্য, ধন্যবাদ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ